বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:২৬ অপরাহ্ন

বিদায় নেবো না, এখন বিদায় দেয়ার পালা: শামীম ওসমান

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ৩৯ জন পড়েছেন
সোমবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২১, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, ‘আমরা নারায়ণগঞ্জে যে উন্নয়ন করতে পেরেছি তার মধ্যে সর্বোচ্চ কাজ শেষ। একটা শেষ কাজ আছে তা হল মেডিকেল কলেজ। ২০২২ এর ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আমার অবসর নেওয়ার কথা। কারণ আমার বয়স ষাটোর্ধ্ব হলে সবার সাথে এডজাস্ট করার মত পলিটিশিয়ান হতে পারবো না। আর রাজনীতিতে আমি সবকিছু মেনে নিতে পারি না। তাই সময় থাকতে বিদায় নেওয়া ভালো। ভেবেছিলাম বিদায় নিবো। কিন্তু বিদায় নেবো না, এখন বিদায় দেয়ার পালা। পেছন থেকে যারা ছুরি মারে তারা কিন্তু বিপদজনক। কারণ সামনে থেকে তাদের দেখা যায় না। এই নারায়ণগঞ্জে পেছনে ছুরি মারার অনেক জায়গা আছে।’

 

 

রোববার (১০ জানুয়ারি) বিকেলে চাষাঢ়ায় রাইফেলস্ ক্লাবে কালের কন্ঠের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

 

তিনি আরও বলেন, ‘বলা হয়ে থাকে মিডিয়া পথপ্রদর্শক। কিন্তু আমি তার সাথে পুরোপুরি একমত না। কেউ কেউ মিডিয়া বের করে কোন ব্যবসায়ীক শেল্টার হিসেবে নেওয়ার জন্য। এবং এটা দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়। এমনকি বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে ক্ষমতায় আসার সিড়ি হিসেবে এটাকে ব্যবহার করা হয়। আমাদের দেশেও সাংবাদিকতার সাদা এবং কালো দু’টি দিক আছে এবং এদের মাঝে লড়াই চলছে। এ লড়াইয়ে আমি জানি শেষে সাদাই জিতবে। কিন্তু জিততে গিয়ে কত মানুষের জীবন যাবে এবং কত ত্যাগ স্বীকার করতে হবে সেই বিষয়টি হচ্ছে সবচেয়ে বড় কষ্টের।’

 

 

সাংসদ আরও বলেন, ‘যে মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দিল তার অবস্থা দেখেন। বাসায় খবর নিয়ে দেখেন তার বাসায় ভালো করে খাবারও নাই। কিন্তু দেশে এরকম মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ৯০ শতাংশ। আর ৭১ এর পরে যারা মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে তারা বিভিন্ন চক্র থেকে, খাত থেকে সম্পত্তি করে মুক্তিযোদ্ধাদের বিতর্কিত করেছে। এটাই বাস্তবতা এবং এটা প্ল্যান করে করা হয়েছে। যাতে পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তানদের বিতর্কিত করা যায়।’

 

 

শামীম ওসমান বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কঠিন ও খারাপ খেলা এখন চলছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনাকে শুধু আওয়ামী লীগের সম্পদ ভাবার কোনো কারণ নেই। কারণ বঙ্গবন্ধু ছিলেন পরাধীন বাঙালি জাতির স্বাধীনতার স্বপ্ন। আর শেখ হাসিনা হলেন অর্থনৈতিক মুক্তির স্বপ্ন। শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের জন্য নয় বরং আমাদের শিশুর ভবিষ্যতের জন্য শেখ হাসিনাকে দরকার।’

 

 

তিনি আরও বলেন, ‘সবাই আওয়ামী লীগ হয়ে গেছে। আমি সরকারি দল না নিজেকে বিরোধী দল ভেবে রাজনীতি করি। আমরা বিরোধী দল হিসেবে থাকতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। কারণ সরকারি দল হিসেবে অনেক কিছু চাইলেও করতে পারি না। শক্তি, ক্ষমতা থাকলেও অনেক কিছু বলতে পারি না। আগামী ২৬ শে মার্চ পর্যন্ত আমরা চোখ-কান খোলা রাখি। কারণ আকাশে অনেক শকুন উড়ে বেড়াচ্ছে। আর কালনাগিনী সাপরা মাটিতে ছোবল মারার জন্য এদিক-ওদিক দৌড়াদৌড়ি করছে। আর তাদের টার্গেট হল শেখ হাসিনা।’

 

 

কালের কন্ঠের জেলা প্রতিনিধি দিলীপ মন্ডলের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম। আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি চন্দন শীল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ্ নিজাম, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সভাপতি তানভীর আহমেদ টিটু, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আরিফ আলম দিপু, কার্যকরী সদস্য বিল্লাল হোসেন রবিন, নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও খবর

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Translate »
Translate »