বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৫১ অপরাহ্ন

মিডিয়াকে দুষছেন সাহেদ

সোজা সাপটা রিপোর্ট / ৩৫ জন পড়েছেন
আপডেট : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০২০, ৪:৪৫ পূর্বাহ্ন
সাহেদ-মাসুদ ১০ দিনের রিমান্ডে, তরিকুলের ৭ দিন
নিউজ নারায়ণগঞ্জ

মিডিয়া কিছু ভুল তথ্য ছড়ানোর জন্যই পরিস্থিতির শিকার হয়ে কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হয়েছে বলে আদালতে দাবি করেছেন রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ ওরফে মো. সাহেদ করিম। এদিন আদালত করোনাভাইরাসের টেস্ট না করে ভুয়া রিপোর্ট ও ভুয়া নেগেটিভ ও পজিটিভ সার্টিফিকেট প্রদানসহ বিভিন্ন অভিযোগের মামলায় গ্রেপ্তার মো. সাহেদ ওরফে মো. সাহেদ করিম ও তার সহযোগী প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ পারভেজের ১০ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

১০ দিন করে রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মাদ জসিম এ রিমান্ডের আদেশ দেন। একই সঙ্গে সাহেদের অন্যতম সহযোগী তরিকুল ইসলাম ওরফে তারেক শিবলীর আরও ৭ দিনের রিমান্ডও মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক এস এম গাফফারুল আলম আসামি সাহেদ ও মাসুদ পারভেজের ১০ দিন করে এবং তারেক শিবলীকে ৫ দিনের রিমান্ডে পর ফের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

প্রথমে রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি কে এম সাজ্জাদুল হক শিহাব, সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত উদ্দিন খান হিরণ বলেন, ‘আসামিরা জনগণের সঙ্গে প্রতারণা, বিশ্বাস ভঙ্গ করেছেন, জাল জালিয়াতি করেছেন। করোনা পরীক্ষা না করেই মানুষকে নেগেটিভ-পজিটিভ সার্টিফিকেট দিয়েছেন। তাদের ওই জাল-জালিয়াতির রিপোর্টের কারণে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছে। তারা মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছেন। তাই ন্যায় বিচারের স্বার্থে রিমান্ডে নিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে তদন্ত কর্মকর্তার প্রার্থীত মতে রিমান্ড মঞ্জুর করা হোক।’

অন্যদিকে, আসামিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট নাজমুল হোসেন, মনিরুজ্জামান, শাহ আলম রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিন আবেদন করে শুনানিতে বলেন, ‘আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অত্যন্ত দক্ষ। তাই এই তদন্তকালীন সময়ের মধ্যে তারা সবই বের করে ফেলবেন। এই কারণে রিমান্ডের কোনো প্রয়োজন নেই। তাছাড়া আসামিরা অসুস্থ। সাহেদের বাবা কিছুদিন আগে মারা গেছেন। সেই শোক তিনি এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেননি। নিজেও করোনা অক্রান্ত হয়েছেন। মামলার তদন্তে তারা বাধাগ্রস্ত করবেন না। মানবিক বিবেচনায় আসামিদের রিমান্ড বাতিল পূর্বক জামিন দিন।’

এদিকে রিমান্ড বাতিলপূর্বক তার পক্ষের আসামির জামিন আবেদনের শুনানি করাকালে সাহেদ কাঠগড়া থেকে কিছু বলার জন্য বিচারকের কাছে অনুমতি চান। বিচারক অনুমতি দিলে সাহেদ চোখের পানি মুছতে মুছতে বলেন, ‘করোনা রোগীদের পরীক্ষা যখন বাংলাদেশে শুরু হয়, তখন আমার হাসপাতালই ঝুঁকি নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা ও চুক্তি করে করোনার চিকিৎসা শুরু করে। শতশত করোনা রোগীর চিকিৎসা করেছি।’

তিনি বলেন, ‘বলা হচ্ছে, আমার হাসপাতালের লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে ২০১৪ সালে। কিন্তু তা সত্য নয়, ২০১৭ সাল পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়ন আছে। এরপর তা রিনিউ করতে দেওয়া হয়েছে, যা প্রক্রিয়াধীন। এখানে আমার কোনো অবহেলা নেই। তাই লাইসেন্স নাই বলা যাবে না।’

সাহেদ বলেন, ‘করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য এগিয়ে এসেই তিনি নিজে যেমন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তার বাবাও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এ ছাড়া তার এমডিসহ অনেক অফিসারই আক্রান্ত হয়েছেন। মিডিয়া কিছু ভুল তথ্য ছড়ানোর জন্য আজ পরিস্থিতির শিকার হয়ে এখানে এসেছি।’

সাহেদের বক্তব্য শেষ হওয়ার পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তার (সাহেদ) বক্তব্য মিথ্যা বলে আদালতের কাছে দাবি করেন।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে সাহেদ ও মাসুদ পারভেজের ১০ দিনে ১০ দিন এবং তারেক শিবলীর পুনরায় সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে সাহেদকে গতকাল বুধবার ভোরে সাতক্ষীরা সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে দাবি র‌্যাবের। তাদের দাবি, তিনি (সাহেদ) গ্রেপ্তার এড়াতে সীমান্ত দিয়ে বোরকা পড়ে অবৈধভাবে ভারতে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। তার আগে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে মাসুদ পারভেজকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ ছাড়া গত ৯ জুলাই তারেক শিবলীকে রাজধানীর নাখালপাড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরদিন আদালত তারেক শিবলীর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ৬ জুলাই র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। পরীক্ষা ছাড়াই করোনার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আসছিল হাসপাতালটি। র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অন্তত ছয় হাজার ভুয়া করোনা পরীক্ষার সনদ পায়।

একদিন পর গত ৭ জুলাই র‌্যাব রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। এরপর সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে ওই দিনই উত্তরা পশ্চিম থানায় এ মামলা দায়ের করে র‌্যাব।


এ বিভাগের আরও খবর

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Translate »
Translate »